NewsNow24.Com
Leading Multimedia News Portal in Bangladesh

পদ্মা সেতু চালুর পর মোংলা বন্দরে আগ্রহ বেড়েছে ব্যবসায়ীদের

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

নিউজনাউ ডেস্ক: পদ্মা সেতু খুলে দেয়ার পর, মোংলা বন্দর ব্যবহারে আগ্রহ বেড়েছে, আমদানি ও রপ্তানিকারকদের। এতে ব্যস্ততা বেড়েছে বন্দরে। ইতোমধ্যে ঢাকার গার্মেন্টস পণ্য মোংলা বন্দর দিয়ে বিদেশে রপ্তানি শুরু হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার (২৮ জুলাই) ঢাকার বিভিন্ন গার্মেন্টস থেকে কন্টেইনারে পদ্মা সেতু হয়ে মোংলা বন্দরে আসা পণ্য নিয়ে একটি বিদেশী জাহাজ পোল্যান্ডের উদ্দেশ্যে ছেড়ে গেছে।

এ বন্দর দিয়ে বিদেশে গার্মেন্টস পণ্য রপ্তানি নতুন এক মাইলফলক বলে মনে করছেন বন্দর কর্তৃপক্ষ ও শিপিং এজেন্টরা।

এদিকে সেবার মান ধরে রাখার জন্যে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছে বলে জানিয়েছে মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ।

সেতুটি চালুর পর রাজধানী ঢাকা থেকে সবচেয়ে কাছের সমুদ্রবন্দর এখন বাগেরহাটের এই বন্দর। সড়ক পথে যেখানে ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম বন্দরের দূরত্ব ২৬০ কিলোমিটার, সেখানে এখন মোংলার দূরত্ব ১৭০ কিলোমিটার। এখন মাত্র সাড়ে ৩ ঘণ্টায় আন্তর্জাতিক সমুদ্র বন্দর মোংলা থেকে ঢাকা যাওয়া যাচ্ছে। আর সময় বেঁচে যাওয়ার কারণে বছরে প্রায় দুই হাজার কোটি টাকা বেঁচে যাবে।

দেশের বড় অবকাঠামো চালুর পর বন্দর কর্তৃপক্ষ বলেছিল, পদ্মা সেতুতে যান চলাচল শুরু হলে মোংলা বন্দরের কর্মব্যস্ততা বাড়বে কয়েক গুণ। গতি আসবে আমদানি-রপ্তানিতে।

বিষয়টি মাথায় রেখে গত কয়েক বছরে বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের মাধ্যমে মোংলা বন্দরের সক্ষমতা বাড়ানো হয়েছে।

বন্দরে ছয়টি জেটি, তিনটি মুরিং বয়া, ২২টি অ্যাংকোরেজ এবং ব্যক্তিমালিকানাধীন ১১টি প্রতিষ্ঠানের জেটির মাধ্যমে মোট ৪২টি জাহাজ একসঙ্গে হ্যান্ডলিং করা সম্ভব।

চারটি ট্রানজিট শেড, দুটি ওয়্যার হাউস, চারটি কনটেইনার ইয়ার্ড, দুটি কার ইয়ার্ডের মাধ্যমে বার্ষিক এক কোটি মেট্রিক টন কার্গো এবং এক লাখ টিইউজ কনটেইনার এবং ২০ হাজারটি গাড়ি হ্যান্ডলিংয়ের সক্ষমতা রয়েছে বন্দরে।

জাহাজ হ্যান্ডলিং দ্রুত ও নিরাপদ হওয়া এবং একই সঙ্গে ঢাকার সঙ্গে দূরত্ব কমায় ব্যবসায়ীদের এখন সময় ও অর্থ দুটোরই সাশ্রয় হবে। ফলে মোংলা বন্দরের দিকে ঝুঁকছেন ব্যবসায়ীরা।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, পদ্মা সেতু চালুর পর ভোগান্তি কমায় আমদানি-রফতানি বাণিজ্যের সঙ্গে জড়িত ট্রাক-লরির চালক ও হেলপাররা অনেক খুশি। এই সেতু চালু হওয়ায় রাজধানীর সাথে সাড়ে তিন ঘণ্টায় সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থার কারণে বছরে প্রায় দুই হাজার কোটি টাকা সাশ্রয় হবে।

মোংলা বন্দর কাস্টমস ক্লিয়ারিং এন্ড ফরওয়ার্ডিং অ্যাসোসিয়েশনের (সিএন্ডএফ) সভাপতি সুলতান আহমেদ খান বলেন, স্বপ্নের পদ্মা সেতু মোংলা বন্দরের ব্যবসায়ীদের জন্য একটি আশীর্বাদ। পদ্মা সেতু চালুর পর আমাদের ব্যবসায়ীদের বিভিন্ন পণ্য নিয়ে প্রায় দুই শতাধিক ট্রাক ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে গেছে। এ বন্দর ব্যবহারের সাথে আমাদের প্রায় ৪০০ ব্যবসায়ী আমদানি-রফতানির সাথে জড়িত।

বাংলাদেশ রিকন্ডিশন্ড ভেহিক্যালস ইম্পোর্টার অ্যান্ড ডিলার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বারবিডা) সভাপতি মোঃ হাবিবুল্লাহ ডন বলেন, সেতু উদ্বোধনের পর আমাদের ব্যবসায়ীদের আমদানি করা শতাধিক গাড়ি মোংলা বন্দর থেকে সাড়ে ৩ ঘণ্টায় রাজধানী ঢাকার পৌঁছে গেছে। এছাড়া ব্যবসায়ীদের শুধুমাত্র জ্বালানি তেল বাবদ বছরে আনুমানিক প্রায় ১২ কোটি সেভ হবে। বারভিডার প্রায় ৩০০ সদস্য মোংলা বন্দর দিয়ে গাড়ি আমদানি করেন। কম সময়ে গাড়ি খালাস ও রাখার পর্যাপ্ত জায়গা থাকায় ব্যবসায়ীরা এই বন্দর দিয়ে আমদানি করতে বেশি পছন্দ করেন। পদ্মা সেতু চালুর হওয়ায় গাড়ি আমদানিতে ব্যবসায়ীদের আগ্রহ বেড়েছে কয়েকগুণ।

মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার এডমিরাল মোহাম্মদ মুসা বলেন, বৃহস্পতিবার মোংলা বন্দরের জন্য একটি স্মরণীয় দিন। কারণ প্রধানমন্ত্রীর পদ্মা সেতু উদ্বোধনের পর এই প্রথম মোংলা বন্দর দিয়ে সরাসরি গার্মেন্টস পণ্য বিদেশে রপ্তানি শুরু হয়েছে। পদ্মা সেতু চালু হওয়ায় ঢাকা থেকে দেশের সবচেয়ে নিকটতম বন্দর হচ্ছে মোংলা। ফলে বিভিন্ন আমদানি-রপ্তানিকারকেরা এ বন্দর ব্যবহারে আগ্রহী হয়ে পড়েছেন। আগামীতে এ বন্দর দিয়ে গার্মেন্টস, কন্টেইনার, গাড়ী ও জেনারেল কার্গো হ্যান্ডেলিংয়ের পরিমাণ আরও বৃদ্ধি পাবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

নিউজনাউ/আরবি/২০২২

 

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

আপনার মতামত জানান

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More