NewsNow24.Com
Leading Multimedia News Portal in Bangladesh

স্টেম সেল প্রতিস্থাপনে এইচআইভি-ক্যান্সার থেকে নিরাময় সম্ভব

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

নিউজনাউ ডেস্ক: ১৯৮৮ সালে ৬৬ বছর বয়সী এক ব্যক্তি এইচআইভিতে আক্রান্ত হয়েছিলেন, সেইসঙ্গে তাঁর দেহে বাসা বেঁধেছিল ক্যান্সার।

সম্পর্কহীন এক দাতার স্টেম সেল প্রতিস্থাপনের পর এখন দুটি মারণ রোগ থেকেই তিনি মুক্ত বলে জানা গেছে। আমেরিকার ক্যালিফোর্নিয়ার ঘটনা। মন্ট্রিয়লে আন্তর্জাতিক এইডস সম্মেলনের দিন চিকিৎসাক্ষেত্রে এই সফলতাকে যুগান্তকারী বলে ঘোষণা করেছেন চিকিৎসকেরা। ওই ব্যক্তিকে সিটি অফ হোপে রেখে চিকিত্সা করা হয়েছিল, এটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম বৃহত্তর ক্যান্সার গবেষণা কেন্দ্র। বিরল জেনেটিক মিউটেশন সহ একজন দাতার কাছ থেকে স্টেম সেল পাওয়ার পর এক বছরেরও বেশি সময় ধরে অ্যান্টিরেট্রোভাইরাল থেরাপি (এআরটি) ছাড়াই ওই এইচআইভি রোগীর চিকিৎসা চলছিল। বিশ্বের চতুর্থ ব্যক্তি হিসেবে এইচআইভি ভাইরাস থেকে মুক্তি পেলেন ওই ব্যক্তি।

আপাতত তাঁর দেহে ক্যানসারেরও কোনও লক্ষণ নেই বলে জানিয়েছেন তাঁর চিকিৎসকরা। হাড়ের মজ্জার যে অংশ থেকে রক্তকণিকা তৈরি হয়, সেই অংশ প্রতিস্থাপন করা হয় স্টেম সেল ট্রান্সপ্লান্ট প্রক্রিয়ায়। এই ক্ষেত্রে যিনি স্টেম সেল দিয়েছিলেন সেই ব্যক্তির দেহে সিসিআর ৫ ডেল্টা ৩২ নামক একটি জিন অনুপস্থিত ছিল।

এই জিনের অনুপস্থিতি মানবদেহকে এইচআইভি ভাইরাসকে প্রতিহত করতে সহায়তা করে। ফলে বোন ম্যারো প্রতিস্থাপন করার পর সুস্থ হয়ে গিয়েছেন রোগী। জন কে ডিকটার নামের শহরের সংক্রামক রোগ বিভাগের একজন সহযোগী ক্লিনিকাল অধ্যাপক বলেন, ”আমরা জানাতে পেরে রোমাঞ্চিত হয়েছি যে ওই ব্যক্তি এইচআইভি থেকে এখন মুক্ত এবং তাকে আর অ্যান্টিরেট্রোভাইরাল থেরাপি নেওয়ার দরকার নেই যা তিনি ৩০ বছরেরও বেশি সময় ধরে নিচ্ছেন। ”

সিটি অফ হোপের মতে, স্টেম সেল ট্রান্সপ্লান্টের আগে ওই রোগীর দেহে কেমোথেরাপি-ভিত্তিক চিকিৎসা চলছিল। যা বয়স্ক রোগীদের জন্য প্রতিস্থাপনকে আরও সহনীয় করে তোলে এবং ট্রান্সপ্ল্যান্ট-সম্পর্কিত জটিলতার সম্ভাবনা কমায়। এই ঘোষণা লক্ষ লক্ষ ক্যানসার ও এইচআইভি রোগীর মনে আশা সঞ্চার করলেও সতর্ক করছেন বিশেষজ্ঞরা। এই পদ্ধতি এইচআইভি-র জন্য কার্যকর প্রতিকার নয় বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তাঁরা। সিটি অফ হোপ রোগীর দেহে স্টেম সেল ট্রান্সপ্লান্টের প্রতিস্থাপনের পর থেকে এইচআইভি ভাইরাসের প্রতিলিপি হওয়ার কোনও প্রমাণ পায়নি বলে জানিয়েছে ।

সেইসঙ্গে তারা জানিয়েছে , “সিটি অফ হোপের রোগীকে এইচআইভি এবং লিউকেমিয়া উভয় থেকেই সারিয়ে তোলার জন্য আমরা গর্বিত।”এখন, যে সমস্ত ব্যক্তিরা এইচআইভি সংক্রমণের ঝুঁকিতে রয়েছেন তাদের এক মাসের ব্যবধানে দুটি ইনজেকশন দেওয়ার পর প্রতিদিনের বড়ি বা প্রতি দুই মাসে নতুন শট নেওয়ার বিকল্প রয়েছে। Moderna সম্প্রতি ঘোষণা করেছে যে এটি একটি HIV mRNA ভ্যাকসিনের প্রাথমিক পর্যায়ে ক্লিনিকাল ট্রায়াল চালু করেছে। এবিসি নিউজ পূর্বে জানিয়েছে যে বায়োটেকনোলজি কোম্পানি অলাভজনক ইন্টারন্যাশনাল এইডস ভ্যাকসিন ইনিশিয়েটিভের সাথে শটটি তৈরি করতে কাজ করেছে, যা Moderna-এর সফল COVID-19 ভ্যাকসিনের মতো একই প্রযুক্তি ব্যবহার করে।

সূত্র : এবিসি নিউজ

নিউজনাউ/এবি/২০২২

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

আপনার মতামত জানান

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More